• Spoken English

    শিখলেই অনেক উন্নতি

    ELITE

ENGLISH Medium এ না হলে

ছেলে-মেয়েকে ELITE -এ ভর্তি করান 

3-6 লক্ষ বাড়তি খরচ নয় 

10-30 হাজারেই কাজ হবে । 

বিস্তারিত জানতে নিচের সমস্ত লেখাগুলো পড়ে  নিন।

ELITE : কদমতলা / শিবপুর /  হাওড়া ময়দান । 98301 58268

আমাদের নতুন শাখা হাওড়া ময়দান

কেন ELITE ?

ইংরেজিতে কথা বলতে পারলেই হাজার সুবিধা | কি শিক্ষা, উচ্চশিক্ষা, চাকরি, পেশা বা ব্যবসা সবেতে এগিয়ে থাকার একটা সিদ্ধান্ত | 

গোটা পৃথিবীতেই যারা তাকে মেনে নিয়েছে দেখুন তাদের সাফল্য  বাকিদের থেকে অনেক অনেক বেশি।

 তাই কম্পিউটার ও বিশ্বায়নের যুগের ভালো যোগাযোগের ক্ষমতাই আপনার সাফল্যের চাবিকাঠি |

মাত্র ৫- ১০  হাজার টাকা খরচ করলেই ছেলেমেয়েদের জীবন বদলে যেতে পারে, ৫- ১০ লক্ষ টাকা খরচ নাও করতে পারেন English Medium-এ ভর্তি না করে | 

সিদ্ধান্তটা কিন্তু আপনার, ছেলেমেয়েও আপনার বা জীবনটা আপনার | আমরা ELITE শুধু আপনাকে হাত ধরে শিখিয়ে দিতে পারি | ২০০৪ সাল থেকে এটাই আমরা করে আসছি | 

বাংলা মাধ্যমের ছেলেমেয়েরাও ইংরাজি মাধ্যমের মত তৈরি হচ্ছে

প্রিয় অভিভাবকগণ,

ইংরাজি মাধ্যম স্কুলের চাহিদা দিনদিনই বেড়ে চলেছে | বলতে গেলে এটা ইংরাজি মাধ্যমেরই যুগ | তাই বলে সবার কিন্তু সাধ্য বা সাহস নেই | বা অনেকেই এই পরিবেশে মানিয়ে নিতে পারে না | পরলে কিন্তু সুযোগ বেশিই |  উচ্চশিক্ষা, বড় অফিস, রাজ্যের বাইরে পড়া বা চাকরি, বিদেশ যাওয়া মানেই ইংরাজি মাধ্যমের বেশি  প্রাধান্য | দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাও কিন্তু সেদিকেই যাচ্ছে | বেশির ভাগ পরীক্ষাই  কিন্তু  এখন ইংরেজিতে |

আপনি গরিব বা মধ্যবিত্ত বা লাখ লাখ টাকা খরচ করতে পারবেন না বলেই আপনার ছেলেমেয়েরা কি অনেক পিছনে পড়ে থাকবে , এবং এই নিয়েই আপনিও কি অন্য সকলের মত ভীষণ দুশ্চিন্তায় আছেন | 

দুশ্চিন্তায় কিন্তু এখনই ভেঙে পড়ার কারণ নেই | সমাধান আপনার হাতেই আছে | আজই ইংরাজিতে কথা বলায় পারদর্শী করে তুলতে ELITE-এর ২-৩ বছরের EME Course-এ ভর্তি করান | গত ১০ বছর হাওড়ার প্রথম সারির স্কুলের ছেলেমেয়েরা এটাই করছে | অনেকটা ইংরাজি মাধ্যমের মতোই তৈরি হচ্ছে ছেলেমেয়েরা | আপনার দুশ্চিন্তার শেষ | আর ইংরাজি মাধ্যমের তুলনায় খরচ কিন্তু সামান্যই | 

ভর্তি কিন্তু করতে হবে ছোটবেলা থেকেই, লজ্জাবোধ আসার আগেই, বড় হলে কিন্তু আর বলবে না | যারা ইংরাজি মাধ্যম স্কুলে পড়ছে তারা কিন্তু ৩-৪ বছর বয়স  থেকেই পড়ছে | বিস্তারিত জানতে বা আলোচনার জন্য আজই ELITE-এ আসুন | অথবা আপনার এলাকায় ELITE-এর Seminar-এ যোগদান করে সব জেনে নিন | অথবা প্রতি বৃহস্পতিবার বিকাল ৫ টায় Guardian Seminar-এ যোগ দিয়ে সব জেনে নিন |

এটা কি শিখতেই হবে ?

মোটেও নয়, তোমার ইচ্ছা। শিখলেও ভালো না শিখলেও তাই। তোমার সব কিছুতেই যদি খুব ভালো বা বেশি চাহিদা না থাকে তো শেখার কোন দরকার নেই।
যদি উচ্চশিক্ষা নিতে না চাও , যদি বড় চাকরি না পেতে চাও, যদি বেশি টাকা না চাও, যদি সব জায়গায় মুখ খুলতে না চাও, যদি ক্লাসরুমে ইংরেজিতে প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে চুপ থাকতে চাও, যদি অন্য রাজ্যে চাকরি না চাও, যদি বিদেশে যেতে না চাও, যদি IT তে চাকরি না চাও, যদি পশ্চিমবঙ্গেই থাকতে চাও, যদি সাধারন জীবন চাও, যদি সবকিছু ত্যাগ করতে চাও, যদি বিদেশী ভাষা বলে ইংরাজিকে সমাদর করতে না চাও, যদি ভাবো যারা ইংরেজিতে কথা বলতে পারেনা তারা কি পৃথিবীতে বেঁচে নেই ? তারা কি জীবনে সাফল্য পাইনি ? বা কাকা, জ্যাঠা, দাদুরা তো না শিখেই জীবন কাটিয়ে দিয়েছে বা Spoken English শিখতে আবার টাকা খরচ কেন ?
বা ইংরেজি মাধ্যমের ছেলেমেয়েদের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে খুব সহজেই একই রকম চাকরির সুযোগ পাবো। ইত্যাদি ইত্যাদি… তাহলে আর তোমার টাকা খরচ করে spoken English শেখার দরকার নেই।

যেটা আমাদের দরকার

ছাত্র-ছাত্রীরা বা যে কেউ যদি যেকোনো বিষয়েই কথাটা ভালোভাবে বলতে পারে তো সাফল্য পাওয়া সম্ভবনা অনেক গুণ বেড়ে যায় | আর সেটাই আমাদের সকলেরই দরকার।

 কোন মাধ্যমে পড়ছে সেটা সব সময় চিন্তার কারণ নাও হতে পারে | কিন্তু ইংরেজিতে বলতে পারছে কিনা সেটাই আসল।

 তাই বাংলা মাধ্যম স্কুলে পড়িয়েও যদি ইংরেজিতে তার Audio Video  Presentation দেখিয়ে এবং শিখিয়ে নেন তো আপনার দুশ্চিন্তার নিবারণ হবেই |

 একটাই লক্ষ্য রাখুন এবং দেখুন যে ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে ভর্তি করার কত বছর পরে একজন ইংরেজিতে কথা বলতে পারছে FULL TIME স্কুল করে | সেই মতোই হিসাব করে ধৈর্য ধরতে হবে আপনাদের, সপ্তাহে মাত্র চার ঘন্টা ক্লাস করে ELITE এ ভর্তি করার পর |

কাদের জন্য ELITE ?

সাধারণ ভাবে সবার জন্য | আমার, আপনার, ছাত্র-ছাত্রীদের, চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী আর সকলের |যদিও বললাম সকলের জন্য, কিন্তু ELITE প্রতিষ্ঠিত হয়েছে  সেই সব ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য যাদের অভিভাবকরা বাংলা না ইংরেজি কোন মাধ্যমে তা ঠিক করতে না পেরে বা বাংলা মাধ্যমেই ভালো পড়াশোনা হয় এই ভেবে বাংলা মাধ্যমেই পড়াচ্ছেন, যারা ইংরেজি স্কুলের খরচের কথা ভেবে পিছিয়ে এসেছেন তাদের জন্য আর যারা ভালো ভাবে ইংরেজি কথোপকথন শিখতে চান তাদের জন্য |যে সমস্ত অভিভাবকরা জানেন যে ইংরেজি কথোপকথন ভালো না জানলে বর্তমান যুগ অনুযায়ী জীবনের বহু ক্ষেত্রেই প্রতিষ্ঠা পেতে অসুবিধা হবেই তারা আর দেরি না করে আজই ELITE এর কর্মযজ্ঞ নিজের চোখে দেখে ও কানে শুনে ছেলেমেয়েদের ভর্তি করান |

যারা জানেন কলকাতার অনেক অফিসে গেলে আর কথা বলা যায় না | যারা জানেন ও মানেন রাজ্যের বাইরে গেলেই বোবা হয়ে যেতে হয়।  ELITE -এর কোর্স এই সকলের জন্যই আর এদের পরবর্তী প্রজন্মের জন্যই | আর যারা অন্যকে সাবধান করে দিতে চায় তাদের জন্যও |আর যারা নিজেদের কথা নিজেরাই বলতে চায় ELITE তাদের জন্যও | যারা অন্তত আর একবার লজ্জা ভুলে চেষ্টা করতে চায় ELITE তাদের সকলের জন্যই |

কারা শিখতে পারবে ?

প্রচলিত ধারণা আর বাস্তব অবস্থা |

Communicative English বা Spoken English কারা শিখতে পারবে ? এটা আমরা অনেকেই ভাবি | ভাবি আমি কি শিখতে পারবো ? এই বয়সে ? তাড়াতাড়ি শিখতে পারবে ? আর যা শিক্ষাগত যোগ্যতা তাতে ? ছেলে মেয়েরা কি শিখতে পারবে ? এই বয়সেই ? আর একটু বড় হলেই বোধ হয় তাড়াতাড়ি শিখতে পারবে |

এখন নয়, এখন যেমন পড়াশোনা করছে করুক | মাধ্যমিক উচ্চমাধ্যমিক বা গ্রাজুয়েশনের পরে করলেই ভালো হবে | আমরাও আর সকলের মতই  বড় হয়েই তো দু  একবার বিচ্ছিন্ন ভাবে চেষ্টা করেছিলাম, কাজ হয়েছে কিনা সেটা কিন্তু আমরা সবাই জানি।

 উপরের এই চিন্তা, আমার বা আপনার শুধু নয়, সারা সমাজই বলতে গেলে এই একই কথা ভাবছে | আর এই ভাবনার ভুলের মধ্যেই সাফল্য না পাওয়ার ভুলটা আমরা সহজেই খুঁজে পেতে পারি |

আমাদের জানার দরকার আছে যে, কথা বলার জন্য সব সময় শেখার দরকার হয় না | আপনি বাঙালি, বাংলা কথা বলার জন্য আপনাকে কি ঠিক সেই ভাবে বাংলা কথা শেখানো হয়েছে ? যেমন ভাবে আপনাকে ইংরেজি শেখার জন্য মেহনত করতে হয় বা হচ্ছে ? আপনার চারপাশে লোকের বাংলা বলছে বলেই আপনি বাংলা শিখছেন | আর কিছু নয় | এটা প্রকৃতির ব্যাপারের মতোই | আপনি গায়ে রোদ মাখতে না চাইলেও সূর্যের আলো গায়ে লাগবেই | বাতাসকে না চাইলেও বাতাস আপনার গায়ে ছোঁয়া দেবেই | দেখতে না চাইলেও চোখ খুলবেই | সেই রকম আপনার চারপাশে যে কথাই আপনার কানে আসবে সেটা শিখবেনই, না চাইলেও | তাই আমরা অনেকে ইংরেজির চেয়ে হিন্দিটা একটু ভালোই বলি এবং কাজ চালিয়ে নিই  |তার কারণ বাংলা ভাষার পরেই হিন্দি ভাষাভাষী মানুষ আমাদের চারপাশে অনেক বেশি, ইংরেজি ভাষাভাষী মানুষের চেয়ে | তাই আপনার দরকার একটা  পরিবেশ যেখানে অনেকেই ইংরেজিতে কথা বলছে অথবা বলার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে | শিক্ষাগত যোগ্যতার সঙ্গে সাধারণ কথাবার্তা চালিয়ে যাওয়া সব সময় সমানভাবে সম্পর্কযুক্ত নয় | তাই বয়স বা শিক্ষাগত যোগ্যতা নয়, পরিবেশ পাওয়াটাই কাম্য | যে পরিবেশটি Elite English Academy তার অত্যাধুনিক Multimedia প্রযুক্তির মাধ্যমে হাজির করেছে।

কথা বলার সহজ তত্ত্ব

রাজীব রতন চার বছরের | সব স্কুলে পা রেখেছে | ভাষা শিক্ষার তার কোন জ্ঞান নেই, কিন্তু অনায়াসেই সে কথা বলতে পারে | কোন কিছুই তাকে শেখানো হয়নি, ব্যাকরণ মেনে | কিন্তু জানে, কিভাবে কথা বলতে হয় | আরো জানে আনন্দ প্রকাশ করতে ,দুঃখ প্রকাশ করতে, জানে রাগ জানান দিতেও | কেউ শেখায়নি কাল, বাক্য গঠনের নিয়ম, কথা বলার ভঙ্গিমা বা জটিল ব্যাকরণের মারপ্যাঁচ | দিব্যি গান করে, করে কৌতুক | বড়দের কথায় কাটান দিতেও ভাষার মারপ্যাঁচেতেও পটুতা দেখায় মাঝে মাঝেই |

কথা বলার আসল কথা হল কান তৈরি | কথা বলার জন্য যত চেষ্টাই কেউ করুন না কেন, কান তৈরি না হলে যথাযথ গতিতে কখনোই কথা বলার যোগ্যতা অর্জন করা যাবে না | কান তৈরি সাথে সাথে যথেষ্ট পরিমাণে শব্দের সঞ্চয় না থাকলেই যত  বিপত্তি | প্রথমে  শোনা তারপর মাতৃভাষায় বাক্য সাজানো, তারপর বিদেশি ভাষার রূপান্তর, তারপর বলা |

এই বলার মাঝে যত সময় ব্যয় হবে ততই বাড়বে সংশয়, আর সংশয় থেকেই ভুল, তারপরেই থেমে যাওয়া | থেমে যেতে না চাইলে তৈরি করতে হবে কান, বাড়াতে হবে শব্দের সঞ্চয়। তাহলেই বাড়বে গতি আর গতি বাড়লেই সাফল্য, আর সাফল্য আনন্দ, আরও সাফল্য |

শোনার অভ্যাস, বলার অভ্যাস বাকি আর কিছু চাই না

যে শিশু বাংলাভাষীর ঘরে জন্মায়, বাংলা বলে। হিন্দি ভাষীর ঘরে জন্মায়, বলে হিন্দি আর ইংরেজি ভাসির ঘরে জন্মালে, ইংরেজি |

এটা তার বাড়ির ও পারিপার্শ্বিক পরিবেশের প্রভাব | শৈশব থেকেই শেখানো হয় বাবা, মা এবং  আর ও অনেক কিছুই, এলোমেলো ভাবেই।আস্তে আস্তে অবোধ শিশুটি বাবা,মা পরিবারের অনান্য পরিজনের সঙ্গে ভাব বিনিময়ের চেষ্টা শুরু করে বাবা-মায়ের কাছ থেকেই ধার নেওয়া বুলি দিয়ে | তারপর শিশুটি বাড়তে থাকে তিন তিল করে, বাড়তে থাকে তার মাতৃভাষার জ্ঞান এক সময় কথার বাচালতায় ভুলিয়ে দেয় তার ধার নেওয়া মাতৃভাষার ঋণ | 

শিশুটি কিন্তু কিছুই করেনি,তেমনভাবে | ভাব প্রকাশের জন্য অবলম্বন করেছিল নিজেরই মাতৃভাষাকে |কথা  শুনেছে, শুনে নিজের অজান্তে বুঝেছে ! কি বললে কি বলতে হবে তার সহজ সমীকরণ | যা শুনেছে তাই বলছে | ভুল করলে যা, একটু আধটু শিখিয়েছে সবাই, এই যা |আমরা বড়রা যদি শিশু হয়ে যায় সমাধান হতে পারে ইংরেজিতে কথা বলার সমস্যাটা | আর যারা শিশু তারা তো শিশুই, তাদের তো কোন সমস্যাই নেই এবং এটাই তো সঠিক সময় ওদের শেখবার |

কখন শুরু করবেন বা করাবেন ?

সবচেয়ে ভালো হয় লজ্জা বোধ হওয়ার আগেই | লজ্জাবোধ আসলেই আসবে সংকোচ | আর সংকোচের সঙ্গেই আসে ভয়। | সংকোচ আর ভয় মিলেই যে কোন ব্যক্তির  উদ্যমকে নষ্ট করে দেয় | তখন যে কোন বিষয়ই আর শেখা হয়ে ওঠে না। যেমনটি হয়েছে, হয় এবং হচ্ছে আমাদের বড়দের ক্ষেত্রে | আমরা অনেকেই ইংরেজি ভাষাটা জানি। কিন্তু সংকোচে মুখ না খোলার জন্য কখনোই ইংরেজি কথোপকথনে পারদর্শী হয়ে উঠতে পারিনি | ছোটবেলা থেকেই নাচের অভ্যাস থাকলে একজন যে কোন বয়সেই নাচতে পারে | একজন পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তি যার কোনদিনই নাচের অভ্যাস ছিল না, তাকে নাচতে বললে লজ্জা তো পাবেই | তাই শুরু করলে ভালো হয় ছোটবেলা থেকেই | যারা একটু বড় বা বড়ই তাদের শুরু করা উচিত আজ থেকেই, কাল নয় | কাল হয়তো বা কাল হয়ে যাবে |

কত দিন শিখবেন ?

  • Communicative English বা Spoken english কতদিন শিখবেন ?
  • আমরা অংক, বাংলা, ভূগোল, ইতিহাস, বিজ্ঞান, খেলাধূলা কতদিন ধরে শিখি ? 
  • ৬ মাস ?  ১২ মাস ? না ১ কিংবা ২  বছর ? নাকি বেশ কয়েক বছর ধরে ?
  • কত শ্রেণী পর্যন্ত আমরা পড়তে চাই | প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয়, চতুর্থ না দশম না দ্বাদশ না স্নাতক নাকি আরো উচ্চতর পর্যন্ত ?
  • এটা নির্ভর করে আমরা শিক্ষার স্তর বা মান কতটা চাই তার উপরে | কম সময় ধরে শিখলে কম শিক্ষা, আর বেশি সময় ধরে শিখলে বেশি শিক্ষা |
  • এটা অন্তত সবাই জানে যে চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্র দশম শ্রেণীর অংক করতে পারে না। দশম শ্রেণীর অংক করতে হলে দশম শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশোনা করা দরকার |
  • তাই আমাদের ঠিক করতে হবে আমাদের ইংরেজিটা কতটা দরকার আর আমরা কতটা শিখব |
  • কম আয় চাইলে, কম, বেশি আয় করতে চাইলে বেশি,আর রোজগার করতে না চাইলে পড়ারই দরকার নেই।

কি কি বিষয় পাবেন বা কেন দীর্ঘমেয়াদি কোর্স ?

প্রথমে ভাবতে হবে আপনি কি চাইছেন ? বা সন্তানদের ইংরেজিতে কথা বলায় কতটা পারদর্শী করতে চাইছেন। ? শুধুমাত্র অফিসিয়াল কাজ কর্ম চালাতে যতটুকু দরকার ততটুকু নাকি অনেক বিষয় সম্পর্কেই একটু আধটু কথা বলার মত যোগ্যতা অর্জন করতে চাইছেন বা চাইবেন। ? আপনি কি জানেন সাধারণ  কথাবার্তা বলতে কোন নির্দিষ্ট সীমার কোন সীমারেখা টানা যায় না ? সাধারণ বলতে আপনি কি বোঝাবেন ? যাই বলতে যান না কেন প্রায় সব বিষয়কেই আপনি ছুঁয়ে যান কথা বলার সময় |ছেলে মেয়েকে  স্কুলে  ভর্তির কথা বলার সময় স্কুলের কথা বলতে বলতেই কথা চলে আসবে, ভর্তি পদ্ধতি সম্বন্ধে, ভর্তি ফি, বাংলা মাধ্যম না ইংরেজি মাধ্যম, ইংরেজি মাধ্যম হলে সামর্থ্য ও আরো হাজার ব্যাপার।ভর্তির পদ্ধতি বললেই আসবে ফি, পড়ানোর পদ্ধতি, সংরক্ষণের পক্ষে আরো বিপক্ষে যুক্তি, সংরক্ষণ আসলেই আসবে রাজনীতির কথা। বাংলা মাধ্যমে না ইংরেজি মাধ্যমে, কথা আসলেই আসবে পছন্দ, অপছন্দ, সামর্থ্য-অসমর্থ্য, চালচলন ও জীবনধারা, কুসঙ্গ, সুসঙ্গ| সামর্থের কথা আসলেই আসবে,আপনার জীবিকা বা ব্যবসায়ের ভালো-মন্দ, ব্যবসায়ের কথা আসলেই আসবে VAT,GAT,GST ও  আরো হাজার  তত্ত |

 ছেলে মেয়েকে পড়ানোর সময়ই ভাবছেন জীবন ও জীবিকা নিয়ে নানা কথা | জীবনের লক্ষ্য আর লক্ষ্য ভঙ্গ হলেই আবার নতুন লক্ষ্যের প্রতি লক্ষ্য। আর লক্ষ্যের জন্য লক্ষ্য আলোচনা, চিন্তা আর তার বহিঃপ্রকাশ |

তাহলে কথা বলার সময় বাদ দিলেন কোন বিষয়টাকে ? শিক্ষা, সামর্থ, ব্যবসা-বাণিজ্য, রাজনীতি, ধর্ম- কর্ম, ভালো-মন্দ, পছন্দ-অপছন্দ, বাংলা, ইংরেজি, ইতিহাস, ভূগোল, বিজ্ঞান ,সাহিত্য, সাধারণ জ্ঞান, বিশ্ব পরিস্থিতি, বিশ্ব অর্থনীতি, বিশ্ব রাজনীতি, ভ্রমণ এরকম শত রকমের আলোচনা চলে আসবে আপনার আলোচনার মাঝে।

 তাই ইংরেজিতে কথা বলতে চাইলে প্রায় সমস্ত বিষয়ের উপরেই কিছু শব্দ, বাক্য আপনাকে জানতেই হবে | তা না হলে কথা বলতেই পারবেন না |

এক কথায় দরকার একটা যুক্তিপূর্ণ সময়সীমা,  আপনি অনুভব করতে পারবেন বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলার সময়।

 আর ছাত্র-ছাত্রীদের জানতে হবে প্রায় সব বিষয়ের উপরযাতে কর্মজীবনে বা জীবিকা  নির্ধারণের সময় ইংরেজি মাধ্যমের ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে কঠিন লড়াই করে কর্মজীবনে প্রবেশ করতে পারে বা জীবিকা নির্ধারণ করতে পারে |

 কারণ এখন প্রায় সব বড় বড় প্রতিষ্ঠানেই ইংরেজিতে কথাবার্তা চালাতে পটু ব্যক্তিরাই অগ্রাধিকার পায় এবং কর্মজীবনে দ্রুত উন্নতি লাভ করতে পারে | ব্যতিক্রম অবশ্যই আছে, তবে ব্যতিক্রম  খুঁজতে গিয়ে যেন নিজেদের যুগের ব্যতিক্রম না করে তুলি | শিখতে চাইলে শিখতে হবে তিনমাস, ছয়মাস বা বছর নয়, শিখতে হবে কয়েক বছর। তবেই পাবেন সাফল্য |Elite আপনাকে দেবে পরিপূর্ণ শিক্ষা আর আপনাদের সাফল্য Elite কেও দেবে পূর্ণ সাফল্য।

কথা বলার গতির অংক বা কেন আমরা বাংলায় ফিরে আসি ?

আমরা অনেকেই কথা শুরু করি ইংরেজিতে | কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই ফিরে আসি বাংলায়, এটা কেন হয় ? 

আমরা যখন বাংলা বলি তখন কিন্তু কোন কথাই বলতে দেরি হয় না | কারণ কথাটা শোনা মাত্রই কথার মানে আমরা বুঝে ফেলি এবং চটপট উত্তর দিয়ে দিই | কিন্তু যখন কেউ আমাদের সঙ্গে ইংরেজিতে কথা বলে তখনই আমরা আর চটপট উত্তর দিতে পারি না |আমরা দেখে নিতে পারি কথা বলার সময়ের অংকটা |

 আমরা প্রথমে ইংরাজিটা  শুনি | শুনে তার মানেটা বাংলায় ভাবি | তারপর তার উত্তরটা বাংলায় ভাবি | তারপর সেই উত্তরটি কে ইংরেজিতে অনুবাদ করি | তারপর তা সাজাই এবং তারপর তা ইংরেজিতে বলি।

 এই যে এতটা সময় আমরা   নিই, তাতেই শুরু  হয়ে যায়  যত বিপত্তি| আমরা ভাবতে থাকি আমার কথা বলতে দেরি হচ্ছে। আমার সঙ্গে যে ব্যক্তি কথা বলছে নিশ্চয়ই কিছু  ভাবছে | আর এই ভাবনাটাই আমাদের ভাবার কাজকে আরো দেরি করিয়ে দেয় | তার ওপর আবার বোঝা হয়ে দাঁড়াচ্ছে যে ব্যক্তিটি কথা বলেই  যাচ্ছে, এমনকি আমার উত্তর পাওয়ার আগেই, তখনই আমরা ভয়ে বা লজ্জায় আবার চিরাচরিত অভ্যাসমতো মাতৃভাষায় অর্থাৎ বাংলা ভাষায় ফিরে আসি |

প্রথমে কার সঙ্গে কথা বলবেন ?

Communicative English  বা Spoken English এর প্রধান ও প্রথম শর্তই হলো কথা বলা | কথা আপনাকে বলতেই হবে, না হলে কিন্তু কিছুই হবে না | কিন্তু সমস্যাটা হচ্ছে কথা বলবেনটা কার সঙ্গে ? বাড়ির কারও সঙ্গে ? বন্ধুবান্ধব ? আত্মীয় ? না সহপাঠী ? কোথা থেকেও যদি সাহায্য না পান ? বা লজ্জায়ই পান?

সবচেয়ে সহজ উপায় হল, প্রথমে নিজে নিজে, মনে মনে, তারপর শব্দ করে, পারলে আয়নার সামনে, লজ্জা পেলে বন্ধ ঘরে | কারণ এই সময়টা আপনার লজ্জা থাকাটাই স্বাভাবিক |  লজ্জা থাকলেই থাকবে সংকোচ | যেটা আপনার প্রস্তুতি পর্বের সবচেয়ে বড় বাধা | কিন্তু থামলে চলবে না, থামলেই হার। আপনাকে জিততেই হবে।

 আমরা জানি আপনার যত বিপত্তি চেনা জানা পরিবেশেই | তাই সবচেয়ে বুদ্ধিমানের কাজ হল অজানা অচেনা পরিবেশ যেখানে কেউ আপনাকে চেনে না সেখানেই সেরে নিতে পারেন আপনার ইংরেজিতে কথা বলার প্রাথমিক তালিম |

নিজে নিজে কথা বলা

নিজে নিজে কথা বলা আপনার প্রস্তুতি পর্বে সবচেয়ে সাহায্যকারী পদ্ধতি এবং বন্ধু | মানুষ নিজেকে নিজে লজ্জা খুব  কম ক্ষেত্রেই পায়। তাই নিজেকে প্রস্তুত করতে নিজেরই কানের সাহায্য নিন | তবে নিজের মুখে কথা বলে কানের থেকে সবসময় ঠিক হলো না ভুল হলো এমন নিখুত মতামত চাইবেন না। মনে রাখতে হবে  মুখও আপনার আর কানও আপনার, অন্য কারো নয়| কানকে না জানিয়ে না হয় কিছুক্ষণ বকেই গেলেন | কান যখন বুঝতে পারবে তখন তো আপনি কিছু  শিখেছেনই, অন্তত কথা বলার গতিটা তো পেয়েছেনই| কিছু কিছু মাঝে মাঝে না হয় দু একটা ভালো মন্দ শুনিয়েই দেবেন | তখনো যদি লজ্জা না যায় তো কান কে বলেই দেবেন যে কিছুদিন পরেই না হয় আরো ভালো জিনিস দিয়ে না পাওয়ার খামতিটা ভরিয়ে  দেবো |

 এইভাবে চালিয়ে যান, কিছুদিন পরে দেখবেন কানও আর কিছু বলছে না, শুধু মুখের দিকে  হাঁ করে চেয়ে আছে ভালো কিছু শোনার জন্য |

ব্যাকরণ কতটা দরকার কথা বলার ক্ষেত্রে ?

এটা একটা বহুচর্চিত ও বিতর্কিত বিষয় | আমরা যখনই ইংরেজি কথোপকথন শিখতে চেয়েছি তখনই উঠে এসেছে এই আলোচনাটি |

 আচ্ছা, আমরা যখন বাংলায় কথা বলি তখন কি বাংলা ব্যাকরণ এর কথা মনে পড়ে আমাদের?  কর্তা, ক্রিয়া, ক্রিয়ার কাল প্রভৃতি | আমরা কিন্তু সহজ সরল স্বাভাবিক ভাবে কথাই বলি কোন কিছু না ভেবে |  কি বললে কি বলতে হবে তার সমীকরণ তৈরি হয়ে যায় কথা শুনে শুনেই |

 তাই  শোনার অভ্যাস থেকে যদি বলার অভ্যাস হয়ে যায় তো ব্যাকরণের কথা আপনার মনেই পড়বে না এবং পড়ে না | কিন্তু যদি শোনার পরিবেশ থেকে শিখতে না পান এবং নিজেকে তৈরি করতে চান তো ব্যাকরণের প্রয়োজনীয়তা অবশ্যই এবং আমাদের মনে পড়েও |

মনে রাখবেন যারা সাবলীল ভাবে কথা বলেন যে কোন ভাষাতেই তখন কথা ছাড়া আর কিছুই মনে আসে না তাদের | 

কি পাচ্ছেন আর কি দিচ্ছেন ?

আমরা সব দেওয়া-নেওয়াকেই প্রায় সবাই টাকার অঙ্কে বিচার করতে চাই | এটা হয়তো দোষের কিছুই নয়, এমনকি শিক্ষাকেও আমরা কতটা শিক্ষা পেয়েছি এবং তার জন্য কত টাকা খরচ করেছি তার নিরিখে হিসাব করি |

 এটা অবশ্যই ঠিক যে ব্যক্তিগত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ব্যবসায়িক মনোভাব অবশ্যই আছে এবং থাকবেই এবং থাকতেই হবে, কারণ অর্থ লাভ না করলে প্রতিষ্ঠানটিকে বাঁচিয়ে রাখা যাবে না এবং এটাও ঠিক যে অধিক খরচ না করিলে শিক্ষার গুণগত মানও বজায় রাখা সম্ভব হবে না বা হয় না | তাই ব্যক্তিগত প্রতিষ্ঠান অর্থ লাভ করবেই এবং করতেই হবে, শুধু তাই নয় কোন কোন প্রতিষ্ঠান অধিক লাভের চেষ্টাও করে এবং করবে, তার গুণগত মান ও সুনাম দিয়ে |

তাহলে আমরা কি করব? শিখব কি শিখবোনা? এত টাকা খরচ করবো কি করবো না? শিখে কি হবে বা হবে না? ইংরেজি জানলেই বা কি আর না জানলেই বা কি? এ সব কথাই আমাদের ভুলে গেলে ভালো হয়। এজন্য যে সামান্য কিছু টাকা খরচ করে ( অবশ্যই শিক্ষার উপকারের সাথে তুলনা করে | যদিও সামান্য কথাটা সকলের কাছে সামান্য নয়) আপনি যা পেতে পারেন যে কথা ভেবে |

 তার মানে আসল হিসাব এই দাঁড়াচ্ছে, যে ইংরেজি শেখা আর না শেখার মূল্য  ৫০০০ / ১০০০০ / ১৫০০০ / ২০০০০ টাকা| যারা ইংরেজি শেখার জন্য প্রাণপণ চেষ্টা করছে তারা কিন্তু ৫০০০ / ১০০০০ / ১৫০০০ / ২০০০০ টাকার বিনিময়ে যদি কোন “ইংরাজি ইনজেকশন” পাওয়া যেত, সেটা নিলেই ইংরেজিতে কথা বলা যেত সেটা অনায়াসেই কিনে  নিত| 

তফাৎ একটাই, আমাদের না আছে ধৈর্য না শিক্ষা পদ্ধতি সম্পর্কে বৈজ্ঞানিক ও বাস্তবিক ধ্যানধারণা|, তাই আমরা সবসময়ই চটজলদি Ready made solution খুঁজি| খুঁজে সাফল্য না পেয়ে আরো একটা Ready made solution  খুঁজি,আমরা সবাই আজও খুঁজেই চলেছি।

 আমি বলছি আমারও হবে না, আপনারও,  কারও নয় | দ্বিতীয় ভাষা বা বিদেশি ভাষা শেখার বিজ্ঞানটা বুঝতেই হবে | টাকা আমাকে এবং আপনাকে খরচ করতেই হবে।  তবুও তো Donation নয় যা আমি বা আমরা অনেকেই হাসি মুখেই দিই | আমাদের টাকাটা কিন্তু কষ্ট করেই আপনাকে দিতেই হবে | কোন উপায়ও নেই | উপায় খোঁজার চেষ্টা বৃথা | তার জলজ্যান্ত প্রমাণ আমরা নিজেরাই | বহু চেষ্টার পরেও ইংরেজিতে কথা না বলতে পারা জনগণ |

আপনি কি অনেক ভাবছেন ? বা ঠিক করতে পারছেন না ?

আপনারা ভাবুন। ভাবলেই আমরা আছি | তবে ভাবলে এখনই ভাবুন | পরে আর নয়, ৫, ১০ বা ১৫ বছর পরে যখন ছেলে মেয়েরা জীবন জীবিকার জন্য যুদ্ধ করবে তখন আর সুযোগ পাবেন না |

মনে রাখবেন ইংরেজিতে কথা বলাটা কিন্তু শুধু কোন শিক্ষা নয়, একটা অভ্যাস এবং ভালো বলাটা অনেক দিনের, অনেক আগের প্রস্তুতি | আর ইংরেজিকেই পছন্দের বিষয় হিসাবে নিয়ে ভালোভাবে পড়লে,  জীবিকার বহু সুযোগ, অর্থ, মান  ও যশ সবই | অন্য অনেক জীবিকার চেয়েই অনেক অনেক বেশি। আর সারা বিশ্বে তার বিচরণ | তাই অনেকটা ইংরেজি মাধ্যমের মতোই ছেলেমেয়েদের পড়ানো আর না পড়ানোর মধ্যে তফাৎ হচ্ছে মাত্র ১৫- ২০ হাজার টাকা | ছেলে মেয়ে সারা জীবনের জীবন জীবিকার তাগিদে প্রায় কিছুই নয় | নয়ই | আপনি ভাবুন |

কেমন ভাবে শিখবে ? ছোট বড় সবাই ?

আমরা জানি আপনারা অনেক ভেবেছেন কিন্তু কিছুতেই ঠিক করে উঠতে পারছেন না | আমরা বলছি কি, আপনারা একটা সহজ সমাধানে চলে আসুন।  এত কিছু না ভেবে, ভাবুন না যে ছেলেমেয়েকে ইংরেজি Coaching এর জন্য আরও একটা Coaching এ দিয়েছেন | যদি আশা বাদী হন ও আমাদের যুক্তি অনুযায়ী ELITE EME  ৩ বছরের কোর্সে এ ভর্তি করেন তো ছেলেমেয়েরা তো শিখবেই,  অন্যথায় অন্তত ইংরেজি বিষয়টাতে অনেক বেশি পারদর্শী হয়ে যাবেই ELITE এ পড়লে |

 সিদ্ধান্তটা আপনাকেই নিতে হবে, এবং সেটা এখনই এবং ২ বার ভাববার সময় ও সুযোগ পাবেন না | ছেলে মেয়েকে বাংলা মাধ্যমে ভর্তি করিয়েছেন, তাদের যতটা সম্ভব ইংরেজি মাধ্যমের ছেলেমেয়েদের মতো তৈরি করতে মাসে গড়ে মাত্র ৫০০ টাকা খরচ করে কয়েক বছর পড়ানোর সুযোগ পাচ্ছেন, মোটামুটি ১৫-২০ হাজার টাকা খরচ করেই | যেটা ইংরেজি Tution বা Coaching fees- এর থেকেও কম | মাসে কিন্তু ইংরেজি মাধ্যম এর মত ৫-১৫ হাজার টাকা নয়,বছর বছর Donation, আর কারণ-অকারণে হাজার হাজার বা লাখ তো নয়ই |

একথা সবাই  জিজ্ঞাসা করছে ELITE এর সেই শুরুর সাল ২০০৫ থেকেই | ভাবুন তো আপনার  বাড়ির  ৩ বছরের শিশুটি কিভাবে শিক্ষা, ভাষাজ্ঞান,  ব্যাবরণ, বাক্যগঠন, কাল, কর্তা, ক্রিয়া না জেনেও নির্ভুলভাবে আপনার সঙ্গে কথা  বলছে | ওর তো সবে ৩ বছর, আপনার ২০-৩০-৪০-৫০-৬০-৭০- ৮০-৯০-১০০+,ইংরেজিতে কথা বলাটা কিন্তু সারা জীবনের স্বপ্ন ও টেনশনই রয়ে গেল |

আমরা শিশু হতে চাইছি না বলেই আর কথা বলার ভাষাটা শেখা হচ্ছে না | একটা গল্প পড়লে,ঘটনা ও গল্পের চরিত্রদের আমরা কিছুদিন মনে রাখতে পারি, আবার একই গল্পের সিনেমা হলে আমাদের কাছে গল্পটির কাহিনী ও চরিত্রগুলো একেবারে চোখের সামনে ভেসে থাকে আর তাদের সংলাপও, অনেকদিন ধরেই |

 শিক্ষাটাও সিনেমার মতো হলেই আরও সহজ হয়ে যায় আমাদের কাছে, আপন হয়ে যায়, কাছে টানে, কাছে টানলে মনের মধ্যে স্থান হয়ে যায়।

ELITE ছোট বড় সকলকেই সাধারণ কথাবার্তা, সমাজ, পরিবার, পরিবেশ, শিক্ষা, দৈনন্দিন কাজকর্ম, জীবন-জীবিকা, অর্থনীতি, রাজনীতি, ঘটনা, দুর্ঘটনা, দেশ, বিদেশ, স্বাস্থ্য, খেলাধুলা, পড়াশোনা, শিল্প, বাণিজ্য-ব্যবসা ইত্যাদি সকল বিষয়ে এবং ভূগোল, ইতিহাস, জীবনবিজ্ঞান, ভৌতবিজ্ঞান, সাহিত্য, প্রকৃতি ও  অংক সহ প্রায় সব বিষয়েই, সাধারণ Theoretical Class ছাড়াও অতি উন্নত মানের Audio Visual Lab- এ সব বিষয়েই সেই সিনেমার মতো উপস্থাপনা করে শিখিয়ে আসছে শিক্ষার্থীদের |

 অভিভাবকদের বলছি, বাইরে থেকে সিদ্ধান্ত নেবেন না | একবার বাবা-মা রা একসঙ্গে এসে দেখে নিন ELITE- এর শিক্ষা পদ্ধতি, আয়োজন ও পরিবেশ |

 মনে রাখবেন, ইংরেজিটা কিন্তু শুধুমাত্র একটা ভাষা নয়,একটা Attitude ও |এটার জন্য চাই Professional Environment | যেমনটি পাবেন একমাত্র ELITE এই |

কোন মাধ্যমে পড়বে ? বাংলা না ইংরাজি ?

আমাদের যেটা দরকার সেটা হচ্ছে যে আমরা যদি আমাদের কথাবার্তা ইংরাজিতে বলতে পারি, কি শিক্ষা, চাকরি বা পেশা বা  ব্যবসায় তো আমরা জীবনে বেশি সাফল্য পেতে পারি | তার জন্য প্রায় প্রতি ৪ জনের মধ্যে ১ জন অন্তত ইংরেজি মাধ্যমের স্কুলে ভর্তি হচ্ছে | আর তার জন্য অভিভাবকরা বারো মাস পর্যন্ত পড়তে অন্তত বাংলা মাধ্যমের  স্কুলের তুলনায় এই ১৬ বছরে ৩-৫ লক্ষ টাকা অতিরিক্ত খরচ করে | এর পর গ্রাজুয়েশন পড়তে আরও কয়েক লক্ষ টাকা বেশি খরচ | এটা ঠিকই যে ভালো মানের ইংরেজি মাধ্যমের ছেলেমেয়েরা এখন বাংলা মাধ্যমের ছেলেমেয়েদের থেকে কেরিয়ার করাতে অনেকটা এগিয়ে থাকে বা থাকবে |  আমার বাংলা মাধ্যমের ছাত্র-ছাত্রীরাওযারা ইংরেজি কথোপকথন ভালোভাবে শিখে ইংরাজিতে অন্তত মোটামুটি কথা বলতে পারে তারাও বাকিদের থেকে কেরিয়ার করায় অনেকটা এগিয়ে থাকে | ইংরেজি মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ না করতে না পারলেও  আমরা যদি ২-৩ বছর ছেলেমেয়েদের ইংরাজি কথোপকথনে করে তুলতে পারি তো গরিব নিম্নবিত্ত পরিবারের ছেলেমেয়েরাও আরও একটু বেশি সাফল্য পেতে পারে | তাই যারা ছেলেমেয়েদের পড়ার পিছনে অতিরিক্ত ৩-৫ লক্ষ টাকা খরচ করতে পারবেন না বা খরচ করতে চাইছে না তারা কিন্তু ছেলেমেয়েদের ২-৩ বছরের ELITE EME কোর্সে ভর্তি করলে সব সমাধান পেয়ে যেতে পারেন |

যেসব স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীরা আমাদের কাছে পড়ছে

Testimonials

Our Students Love Us

" I am Priyanjali Karar. I have benifited from this institution. Everyday I am learning something new."


" I am Sumit Mitra.The center is too good in there mam and sir help lots of help me and there teachers are so frankly and nice . I loved the center much "
"I am Rudra Verma.
This center is soo good and teachrs are also helpful. I loved the center much.
Thank You Elite"
" I'm Bithika Biswas. I am a student of this institution. I was benifited from this institution. Very good Teacher .Thanks."

"I am Kousik Roy.Very Good Teaching and Teachers are very Helpful.Thank You Elite."


"I am Pratik Samanta.Very Good Teaching and Teachers are very Helpful.Thank You Elite."


Our Visitors Counter

000267

ভর্তি এবং কোর্স সম্পর্কে আরও জানতে চান ?

Scroll to Top